• সোমবার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৫ ১৪২৮

  • || ১১ সফর ১৪৪৩

দৈনিক খাগড়াছড়ি

অস্তিত্ব ধরে রাখতে সুযোগ চান খুমীরা

দৈনিক খাগড়াছড়ি

প্রকাশিত: ৯ সেপ্টেম্বর ২০২১  

ছবি- নিজস্ব প্রতিবেদক।

ছবি- নিজস্ব প্রতিবেদক।

পাহাড়ে ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে জনসংখ্যার দিক দিয়ে কম ২য় জনগোষ্ঠী খুমী। সর্বশেষ জরিপের তথ্যমতে, এদের জনসংখ্যা প্রায় ১৭ শ। নানান প্রতিকূলতার মধ্যেও টিকে আছে এ জনগোষ্ঠীটি। তবে শিক্ষায় এখনো অনেক পিছিয়ে আছেন খুমীরা। 

খুমীদের বসবাস বান্দরবান জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে। থানচি উপজেলার রেমাক্রী, তিন্দু এবং বলিপাড়া ইউনিয়নে ১৭ থেকে  ১৮টি পাড়া, রোয়াংছড়ি উপজেলার তারাছা ইউনিয়নে ৬,৭, ৮ নম্বর ওয়ার্ডে ৫টি পাড়া, রুমা উপজেলার রুমা এবং রেমাক্রী প্রাংসা ইউনিয়নে ১১টি পাড়া রয়েছে। এ ছাড়া রাঙামাটি জেলার বিলাইছড়ি উপজেলার বান্দরবান-রাঙামাটি সীমান্ত এলাকা ৫ থেকে ৬ পরিবারের বসবাস রয়েছে। 

এ জনগোষ্ঠী থেকে মাত্র একজন স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছেন। তিনি লেলুং খুমী। এ জনগোষ্ঠী থেকে নেই কোনো ডাক্তার বা ইঞ্জিনিয়ার। শুধু আছে তিনজন জনপ্রতিনিধি। এদের মধ্যে দুজন ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য। একজন জেলা পরিষদের সদস্য। জেলা পরিষদের সদস্যর নাম শি অং খুমী। 

শি অং খুমী বলেন, খুমীরা বর্তমানে বিসিএসের স্বপ্ন দেখেন না। এদের মধ্যে স্নাতক পাস করেছেন মাত্র ৫ জন। সরকারি চাকরি করছেন ১৪ থেকে ১৫ জন। এদের মধ্যে একজন প্রধান শিক্ষক। ১০ জন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক। এর ওপরের পদে কোনো চাকরিজীবী নেই। 

খুমীদের নিজস্ব ভাষা ও বর্ণমালা রয়েছে। তারা তিন ধর্ম অনুসরণ করে। এদের একটি অংশ ম্রোদের ক্রামা ধর্ম, একটি অংশ খ্রিষ্টান, আরেকটি অংশ বৌদ্ধ ধর্ম পালন করেন। সামাজিক উৎসবের মধ্যে সাংক্রাইন বলা হলেও এরা এ সময় বড় উৎসব করে না। প্রকৃতির ওপর নির্ভরশীল এ জনগোষ্ঠী বড় উৎসবের আয়োজন তখনই, যখন নতুন ধান ঘরে তুলে। খুমীরা বিয়ের সময়, নতুন ঘরে ওঠার সময়, কোনো অসুস্থ ব্যক্তির রোগ মুক্তির কামনায় বা প্রত্যাশার চাইতে অতিরিক্ত ফসল পেলে পশু মেরে অনুষ্ঠান করেন। 

খুমীদের একমাত্র স্নাতকোত্তর করা লেলুং খুমী বলেন, খুমীদের অস্তিত্ব ধরে রাখতে হলে রাষ্ট্রকে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। খুমীরা সব ক্ষেত্রে বঞ্চিত। এদের জন্য আলাদা কোটা ব্যবস্থা রাখতে হবে। না হলে আমরা হারিয়ে যাব।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখে পাঠাতে পারেন আমাদের। এছাড়া যেকোনো সংবাদ বা অভিযোগ লিখে পাঠান এই ইমেইলেঃ [email protected]