• শনিবার   ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২৩ ১৪২৯

  • || ১৩ রজব ১৪৪৪

দৈনিক খাগড়াছড়ি

টানা ৪০ দিন নামাজ পড়ে পুরস্কৃত ৫৭ শিশু-কিশোর

দৈনিক খাগড়াছড়ি

প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারি ২০২৩  

ছবি- দৈনিক খাগড়াছড়ি।

ছবি- দৈনিক খাগড়াছড়ি।

খাগড়াছড়ি সদরস্থ খেজুর বাগন মসজিদ এলাকার শিশু-কিশোরদের নামাজের প্রতি আকৃষ্ট করতে পুরস্কারের ঘোষণা দিয়েছিলেন সিরাতুল মুস্তাক্বিম যুব সংঘ। সেই ঘোষণায় আকৃষ্ট হয়ে টানা ৪০ দিন জামাতে নামাজ পড়ে পুরস্কার জিতে নিয়েছে খেজুর বাগান মসজিদ এরিয়ার ৫৭ শিশু-কিশোর।

খেজুর বাগান জামে মসজিদ ও সিরাতুল মুস্তাক্বিম যুব সংঘের উদ্যোগে খেজুর বাগান জামে মসজিদে সোমবার(২৩ জানুয়ারি) সকালে এমনই আয়োজন হল।

তাদের ৪০ দিন জামাতে নামাজ পড়লে পুরস্কারের সে ঘোষণায় উৎসাহিত হয়ে এলাকার অনেক শুশু-কিশোরই নামাজ আদায় শুরু করে।  টানা ৪০ দিন নিয়মিত জামাতে নামাজ পড়েছেন, এমন ৫৭ জনের হাতে সোমবার সেই পুরষ্কার তুলে দেওয়া হয়।

পুরুস্কার হিসাবে পাঞ্জাবি, জায়নামাজ, ইসলামী বই-খাতা, ছাতা, কলম-পেন্সিল, রাবার, কাটার, পেন্সিল বক্স, বাংলায় অর্থসহ কোরআন শরীফ প্রদান করা হয়।

শিশু-কিশোরদেরকে নামাজের প্রতি আকৃষ্ট করে মসজিদমুখি করার লক্ষ্যে আয়োজিত এমন উদ্যোগ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। সিরাতুল মুস্তাক্বিম যুব সংঘের এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন অনেকে।

বিষয়টি সম্পর্কে হাফেজ সাইফুল ইসলাম আকতার বলেন, ঘোষণার পর থেকে প্রায় শতাধিক শিশ-কিশোর মসজিদে নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামাতের সঙ্গে আদায় করা শুরু করে। তারা ঠিকমতো নামাজ আদায় করছে কিনা তা হিসার রাখার জন্য প্রতি ওয়াক্ত নামাজের পর হাজিরা নেয়া হতো। এভাবে নিয়মিত যাচাই-বাছাই ও হাজিরার ভিত্তিতে সর্বশেষ ৫৭ জন বিজয়ী হয়।

তিনি বলেন, প্রতিযোগিতা চলাকালীন সময়ে তাদের শুধু নামাজই পড়ানো হয়নি। বরং সঠিকভাবে নামাজ শিক্ষা ও নামাজ সম্পর্কে জরুরি মাসয়ালাও শেখানো হয়, সেই সঙ্গে তালিম-তরবিয়ত এবং নামাজের প্রতি মানুষকে আহবানের পাশাপাশি দ্বীনি ইসলাম সম্পর্কে শিক্ষা দেয়া হয়েছে।

এমন কার্যক্রমে এলাকার শিশু-কিশোররা নামাজের প্রতি আগ্রহী করে তুলছে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।  এরপর থেকে শিশু-কিশোরেরা নিয়মিত নামাজে আসছে বলেও জানান তারা।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখে পাঠাতে পারেন আমাদের। এছাড়া যেকোনো সংবাদ বা অভিযোগ লিখে পাঠান এই ইমেইলেঃ [email protected]