• মঙ্গলবার   ১৬ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ১ ১৪২৯

  • || ১৭ মুহররম ১৪৪৪

দৈনিক খাগড়াছড়ি

পদ্মাসেতুর উদ্বোধনে যা ভাবছেন খাগড়াছড়ির পেশাজীবীরা

দৈনিক খাগড়াছড়ি

প্রকাশিত: ২৫ জুন ২০২২  

পদ্মাসেতুর শুভ উদ্বোধনে মাতোয়ারা সারাদেশ। আনন্দ ছড়িয়ে পড়েছে জেলা থেকে জেলাতে। এই থেকে পিছিয়ে নেই প্রকৃতির রানী খাগড়াছড়িও। সাধারণ মানুষ, চিকিৎসক থেকে শুরু করে রাজনীতিবিদ-সবাই বলেছেন মাথা নোয়ায়নি বাংলাদেশ। নিজেরা পদ্মা সেতু করার ফলে আজকে বাংলাদেশের সম্মান শিখর ছুঁয়েছে। আর এই অবদানের কৃতিত্ব একমাত্র শেখ হাসিনার। তিনি দমে যাননি বলে দেশ আজ বিশ্ব মিডিয়ার প্রধান খবরে। পদ্মা সেতুর উদ্বোধনে কি ভাবছেন খাগড়াছড়িতে বসবাসরত নানান পেশার মানুষজন। দৈনিক খাগড়াছড়ি জানার চেষ্টা করেছেন মানুষের সেইসব অনুভূতিগুলো। 
সঞ্জয় ত্রিপুরা থাকেন মহালছড়িতে। পেশায় একজন রাজনীতিবিদ। পাশাপাশি একজন ব্যবসায়ীও। তিনি বলেন, কথিত দুর্নীতির অভিযোগ তুলে বিশ্বব্যাংক চুক্তি বাতিল করে দিলেও নিজস্ব টাকায় পদ্মা সেতু নির্মাণ করে বিশ্বকে আবারো প্রমাণ করেন শেখ হাসিনা, আমরাও পারি। সেসঙ্গে ভেঙেছে বিদেশিদের ওপর নির্ভরশীলতার ‘অচলায়তন’। 
তিনি আরও বলেন, আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রমাণ করতে পেরেছে বাঙালি। দেশের মানুষের সাহস ও পাশে দাঁড়ানোর কারণেই সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে পদ্মা সেতু আজ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বে দেশের মানুষের মাথা উঁচু করে দিয়েছে। 
খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার চিকিৎসক ডা. মুহিম। চট্টগ্রাম শহর থেকেই নিয়মিত যাওয়া আসা করেন। মানুষকে সেবা দিয়ে গেছেন এই করোনাতেও। 
তার কাছে জানতে চাইলে মুঠোফোনে তিনি বলেন, পদ্মা সেতু আমাদের সাহসী ও বিচক্ষণ নেতৃত্বের পরম্পরার এক অসামান্য উপাখ্যানের নাম। প্রতিকূলতাকে জয় করে সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দেয়ার এক সংগ্রামী ঐতিহ্যের প্রতিফলন। বাঙালির অর্থনৈতিক মুক্তির এক অবিচ্ছন্ন সংগ্রামের আরেক নাম। মুক্তিযুদ্ধের পর শূন্য হাতে সোনার বাংলার স্বপ্ন বঙ্গবন্ধু দেখেছিলেন বলেই বাংলাদেশের উন্নয়ন অভিযাত্রার ভিত্তিটি এমন মজবুত হয়েছিল। 
জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রণ বিক্রম ত্রিপুরা বলেন, পদ্মাসেতুর উদ্বোধনে ভীষণ আনন্দিত আমরা। নিজেদের টাকায় সেতু করছি। ভাবতেই বুকটা গর্বে ভরে উঠে। তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতু ছাড়াও মেট্রোরেল, বঙ্গবন্ধু টানেল, বঙ্গবন্ধু শিল্প পার্কের মতো প্রকল্পগুলোও এখন চারদিকে আলো ছড়াচ্ছে। এসব চালু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনীতির পুরো চেহারাটাই বদলে যাবে। 
পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে খাগড়াছড়িতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সড়ক পরিবহন ও সেতু বিভাগের সংশ্লিষ্ট সবার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনায় সমবেত প্রার্থনা ও খাবার বিতরণ করা হয়েছিল গত ২১ জুন। অনুষ্ঠানে প্রধান ধর্মীয় আলোচক ছিলেন ধর্মরাজিক বৌদ্ধ বিহারের বিহারধ্যাক্ষ প্রজ্ঞাবংশ মহাথের ভান্তে। 
তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন হতে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে এত বড় সেতু পেতে যাচ্ছে দেশের মানুষ। তিনি যতদিন বেঁচে থাকবেন, বাংলাদেশের মানুষ উন্নয়নের সুফল পাবে। 
প্রসঙ্গ: পদ্মাসেতুর উদ্বোধন উদযাপনে খাগড়াছড়ির বিভিন্ন উপজেলায় নেওয়া হয়েছে নানান পৃথক কর্মসূচি।  বহুল কাঙ্খিত স্বপ্নের পদ্মা সেতু ২৫ জুন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সকাল ১০টায় মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে সেতুটি উদ্বোধন করবেন তিনি। এরপর সুধী সমাবেশে বক্তব্য রাখবেন। সেতুর পারের ২১ জেলার প্রায় ১০ লাখ মানুষ সেই জনসভায় অংশ নেবেন। 
 

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখে পাঠাতে পারেন আমাদের। এছাড়া যেকোনো সংবাদ বা অভিযোগ লিখে পাঠান এই ইমেইলেঃ [email protected]