• রোববার   ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২৩ ১৪২৯

  • || ১৩ রজব ১৪৪৪

দৈনিক খাগড়াছড়ি

হাইকোর্টে রিট করে রামগড়ের ইউএনও’র রোষানলে দুই দিনমজুর

দৈনিক খাগড়াছড়ি

প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর ২০২২  

ছবি- দৈনিক খাগড়াছড়ি।

ছবি- দৈনিক খাগড়াছড়ি।

খাগড়াছড়ির রামগড় উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) খন্দকার ইখতিয়ার উদ্দিন মো.আরাফাতের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করে ওই কর্মকর্তার রোষানলে পড়েছেন দুই দিনমজুর। 

ভূক্তভোগী মো. আবুল কালাম জানান, গত রবিবার (১৩ নভেম্বর)  রমগড় বাজারের কালিবাড়ি মোড় থেকে রাজনৈতিক ক্যাডার দিয়ে তুলে খাগড়াছড়ি নিয়ে যাওয়া হয়। পরে একটি অফিস কক্ষে তাঁকে নিয়ে সাদা কাগজে কয়েকটি স্বাক্ষর নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় তাঁকে প্রায় দুই ঘন্টা অবরুদ্ধ করে রাখা হয়। আরেক দিনমজুর মো. আমিনকে কয়েকজন অপরিচিত লোক খোঁজাখুজি করছে বলে তিনি জানান। ওই অবস্থায় দুজনেই নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

রবিবার রাতে এই বিষয়ে ভুক্তভোগী দু’জন রামগড় থানায় জিডি করতে গেলে তাঁদের জিডি গ্রহন না করে ফিরিয়ে দেয়া হয় বলে অভিযোগ উঠে থানা পুলিশের বিরুদ্ধে। অবশ্য থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রাজীব চন্দ্র কর বলেছেন, বিষয়টি তার জানা নেই। শেষমেষ ভুক্তভোগী দিনমজুরের রোববার রাতে রামগড়স্থ ৪৩ বিজিবি ব্যাটালিয়নে নিরাপত্তা চেয়ে একটি আবেদন করেছেন বলে জানা যায়।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে রামগড় ইউএনও খোন্দকার মো: ইখতিয়ার উদ্দিন আরাফাতকে ফোন করা হলে তিনি সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে একটি সংবাদপত্রের প্রতিনিধির সাথে দুর্ব্যবহার করেন। তিনি বলেন- কোন ধরণের রিট-পিটের ব্যাপারে আমি জানি না। আমি এসব ব্যাপার নিয়ে আপনার সাথে কথা বলবো না। আপনি চট্টগ্রামে বসে না থেকে খাগড়াছড়িতে এসে নিউজ করেন।

হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশনের মহাসচিব এড. আহসান হাবীব জানান, বিষয়টি নিয়ে আমরা সরেজমিন গিয়েছি আমরা কাজ করছি। ইউএনও সাহেব অন্যায় ভাবে তাঁদের জেলে পাঠিয়েছেন, তাঁরা প্রতিকার চেয়ে মহামান্য হাইকোটে রিট পিটিশন করেছেন। এ অবস্থায় ইউএনও সাহেব তাঁদের জোর করে স্বাক্ষর নিতে পারেন না। বিচারাধীন বিষয়টি নিয়ে তিনি আরও একবার অন্যায় করেছেন।

তবে খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস জানানন, রামগড়ের ইউএনও’র বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট পিটিশনের কথা জানা তার নেই। তবে তার কোন অফিসার ক্যাডার দিয়ে কাউকে অফিসে ডেকে এন স্বাক্ষর নিতে পারেন না বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গত ১ আগস্ট বিজিবির বিওপি সংলগ্ন রামগড় উপজেলা প্রশাসন ও বিজিবি বিরোধপূর্ণ জায়গায় বেড়া দেওয়ার কাজ করতে গেলে দুই দিনমজুর মো. আবুল কালাম ও মো. আমিনকে নিজ কার্যালয়ে নিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে পাঁচদিন করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন ইউএনও খোন্দকার মো: ইখতিয়ার উদ্দিন আরাফাত। পরে বিষয়টি নিয়ে সংক্ষুদ্ধ হয়ে দুই দিনমজুর সরকারের কাছে ক্ষতিপুরন চেয়ে এবং ইউএনও’র বিচারিক ক্ষমতা বাতিল চেয়ে গত ২৩ অক্টোবর রোববার হাইকোর্টে একটি রিট পিটিশন দায়ের করেন। রিট আবেদনে ভুক্তভোগী দুই দিনমজুর আবুল কালাম ও রুহুল আমিনকে ১০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। পাশাপাশি এ সংক্রান্ত রুল জারির আর্জি জানানো হয়েছে।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখে পাঠাতে পারেন আমাদের। এছাড়া যেকোনো সংবাদ বা অভিযোগ লিখে পাঠান এই ইমেইলেঃ [email protected]