• সোমবার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৫ ১৪২৮

  • || ১১ সফর ১৪৪৩

দৈনিক খাগড়াছড়ি

৪ ইউপির একটিতেও কমপ্লেক্স নেই

দৈনিক খাগড়াছড়ি

প্রকাশিত: ২ সেপ্টেম্বর ২০২১  

ছবি- নিজস্ব প্রতিবেদক।

ছবি- নিজস্ব প্রতিবেদক।

খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) একটিতেও নেই নিজস্ব কমপ্লেক্স ভবন। শতবর্ষী সদর ইউপিতে পুরোনো টিনশেড-আধপাকা ঘরে চলছে দাপ্তরিক কাজ। এমনকি ক্যায়াংঘাট ইউপিতে তাও নেই।

উপজেলা প্রশাসনের তথ্য মতে, শতাধিক বছর আগের মহালছড়ি থানাকে গত আশির দশকের শেষ দিকে উপজেলায় উন্নীত করা হয়। তখন ৫টি ইউপি থাকলেও ২০১৪ সালে গুইমারা উপজেলা তৈরির পর এর সংখ্যা দাঁড়ায় ৪ টি।

ইউনিয়নগুলো হচ্ছে সদর ইউনিয়ন, মুবাছড়ি, মাইসছড়ি ও ক্যায়াংঘাট ইউনিয়ন। এর মধ্যে ৩টি ইউপিতে টিনশেড-আধপাকা ঘর থাকলেও ক্যায়াংঘাট ইউনিয়নে তা নেই। ফলে অন্যের ঘর ভাড়া করে চলছে এর কার্যক্রম।

দুই মেয়াদে ক্যায়াংঘাট ইউপি চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ চাকমা বলেন, ‘দীর্ঘ ৩০ বছর যাবৎ ক্যায়াংঘাট ইউপির ঘরটি পরিত্যক্ত অবস্থায় আছে। এ যাবৎ মাইসছড়ি বাজারে 
১টি ও ক্যায়াংঘাট গ্রামে ১টি ঘর  ভাড়া নিয়ে পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনা করছি।

ভবন না হওয়া সম্পর্কে চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ বলেন, ইউপির নামে জায়গা বন্দোবস্ত না থাকায় কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ করা যাচ্ছে না। ইউনিয়নের জন্য কেউ জমি দাতা থাকলেও নাম পরিবর্তনসহ কাজ গুছিয়ে আনা দীর্ঘ সময়ের ব্যাপার। তাই কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ বিলম্ব হচ্ছে।

মাইসছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান সাজাই মারমা বলেন, ইউপির নামে ৮০ শতক জমি রেজিস্ট্রি করা হয়েছে। ভবনের জন্য মন্ত্রণালয়ে কাগজপত্র পাঠানো হয়েছে।

মহালছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রতন কুমার শীল বলেন, ১৯০৫ সাল থেকেই মহালছড়ি সদর ইউপির কার্যক্রম চলছে। এখনো সেই পুরোনো টিনশেড ঘরে দাপ্তরিক কাজ করতে হচ্ছে।

কমপ্লেক্স ভবন না থাকা প্রসঙ্গে রতন শীল বলেন, ইউপির জায়গাটি উপজেলা পরিষদের সীমানায় অন্তর্ভুক্ত। এ কারণে কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ করা যাচ্ছে না। উপজেলা পরিষদের সঙ্গে বোঝাপড়া করেই জমি সংক্রান্ত সমস্যা মেটাতে হবে।

একই সমস্যা নিয়ে মুবাছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান বাপ্পী খীসা বলেন, জায়গা সংক্রান্ত জটিলতায় কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ সম্ভব হচ্ছে না। তবে ভূমি জটিলতা নিরসন হওয়ার পথে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জোবাইদা আক্তার বলেন, ‘খোঁজ নিয়ে দেখেছি জায়গা স্বল্পতার কারণে কমপ্লেক্স ভবন করা যাচ্ছে না। বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রস্তাব পাঠাব। যেভাবেই হোক দ্রুত কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করব।’ 

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখে পাঠাতে পারেন আমাদের। এছাড়া যেকোনো সংবাদ বা অভিযোগ লিখে পাঠান এই ইমেইলেঃ [email protected]