• সোমবার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৫ ১৪২৮

  • || ১১ সফর ১৪৪৩

দৈনিক খাগড়াছড়ি

৫৫ বছরেও ভবন পায়নি গোয়াইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

দৈনিক খাগড়াছড়ি

প্রকাশিত: ২৯ আগস্ট ২০২১  

ছবি- নিজস্ব প্রতিবেদক।

ছবি- নিজস্ব প্রতিবেদক।

খাগড়াছড়ির নবসৃষ্ট গুইমারা উপজেলার সিন্দুকছড়ি ইউনিয়নে গোয়াইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয়েছে ১৯৬৫ সালে। প্রতিষ্ঠার দীর্ঘ ৫৫ বছর পেড়িয়ে গেলেও এ সরকারি বিদ্যালয়টির কোন অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়নি। 

সরেজমিনে গোয়াইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দেখা যায়, কাঠের কাঠামোতে টিনের বেড়া ও চালা দিয়ে ঘরটি নির্মিত। বারান্দায় বাঁশের বেড়া। করোনার কারণে প্রায় দেড় বছর ধরে স্কুল বন্ধ থাকায় বিদ্যালয়ের চারপাশে ঝোপঝাড়ে ভরে গেছে। স্কুল ঘরটি জোড়াতালি দিয়ে জরাজীর্ণ অবস্থায় পড়ে আছে। 
 
গোয়াইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রিপ্রুচাই মারমা জানান, বিদ্যালয়ে বর্তমানে তিনজন শিক্ষক ও একজন দপ্তরি কর্মরত রয়েছে। প্রাক প্রাথমিক থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থী সংখ্যা ৯৬ জন। এত দিন যাবৎ সিন্দুকছড়ি ইউনিয়নটি মহালছড়ি উপজেলার অধীনে ছিল। গুইমারা উপজেলা সৃষ্ট হওয়ায় সিন্দুকছড়ি ইউনিয়নটি গুইমারা অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। উপজেলা সীমানা জটিলতার কারণে এ বিদ্যালয়টি এত দিন অবহেলায় পড়ে ছিল। 

রিপ্রুচাই মারমা আরও জানান, গত ৪ মাস আগে ভবনের জন্য আবেদন করা হয়েছে। ভবন নির্মাণের জন্য দুইবার ইঞ্জিনিয়ার এসে জায়গা মেপে গেছেন। তাঁর প্রত্যাশা, এবার ভবন হয়ে যাবে। 

এ প্রসঙ্গে গুইমারা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হিটলারুজ্জামান বলেন, আমি এ উপজেলায় দায়িত্ব নিয়েছি বেশি দিন হয়নি। আমার জানামতে, এখানে তিন উপজেলার তিন ইউনিয়ন মিলে গুইমারা উপজেলা সৃষ্টি হয়। সিন্দুকছড়ি ইউনিয়নটি ছিল মহালছড়ি উপজেলা অধীনে। ফলে ওই ইউনিয়নে যতগুলো বিদ্যালয় ছিল সকল কার্যক্রম মহালছড়ি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের মাধ্যমে পরিচালিত হতো। কী কারণে এত দীর্ঘ সময়ের পরেও ভবন নির্মাণ হয়নি সেটা মহালছড়ি উপজেলা শিক্ষা অফিস কর্মকর্তাগণ বলতে পারবেন। 

গুইমারা উপজেলায় গোয়াইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ছাড়াও আরও ২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় এখনো কাঁচা রয়েছে। এ তিনটি বিদ্যালয়ে ভবন নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে। অতি দ্রুত ভবন নির্মাণ অনুমোদন হবে বলে আশা এলাকাবাসীর।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখে পাঠাতে পারেন আমাদের। এছাড়া যেকোনো সংবাদ বা অভিযোগ লিখে পাঠান এই ইমেইলেঃ [email protected]