• রোববার   ২৫ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১০ ১৪২৮

  • || ১৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

দৈনিক খাগড়াছড়ি

খাগড়াছড়িতে চালু হলো সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্লান্ট

দৈনিক খাগড়াছড়ি

প্রকাশিত: ১৮ জুলাই ২০২১  

ছবি- করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় সম্প্রতি খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে চালু করা হয়েছে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন প্ল্যান্ট।

ছবি- করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় সম্প্রতি খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে চালু করা হয়েছে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন প্ল্যান্ট।

খাগড়াছড়িতে করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যান্ট চালু করা হয়েছে। প্ল্যান্ট থেকে সরাসরি পোর্টের মাধ্যমে ১৫৬ জন রোগীদের একই সঙ্গে অক্সিজেন সরবরাহ করা যাবে।

গত জুন মাসে ১৪শ ৬১ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২১২ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। হাসপাতালে ২৬ জন রোগী ভর্তি রয়েছে। পরিস্থিতি বিবেচনায় খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে চালু হয়েছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যান্ট। করোনার ঊর্ধ্বগতিতে হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যান্ট স্থাপন হওয়ায় স্বস্তি ফিরে পেয়েছে রোগী ও স্বজনরা।

খাগড়াছড়ি স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ‘প্রতিদিনই খাগড়াছড়িতে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া করোনা রোগীদের চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছে চিকিৎসক ও নার্সরা। করোনা আক্রান্ত রোগীদের সিলিন্ডারের মাধ্যমে অক্সিজেন সরবরাহ করা হতো। কিন্তু তা পর্যাপ্ত ছিল না। অক্সিজেনের সংকটের কারণে প্রায়ই রোগীদের চট্টগ্রামে পাঠানো হতো।'

করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় সম্প্রতি খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে চালু করা হয়েছে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন প্ল্যান্ট। হাসপাতালের নিকটে উন্মুক্ত স্থানে স্থাপন করা হয়েছে ৬ হাজার লিটার ধারণ ক্ষমতার অক্সিজেন প্ল্যান্ট। পাইপের মাধ্যমে হাসপাতালের করোনাসহ প্রতিটি ওয়ার্ডে অক্সিজেন র্পোট স্থাপন করা হয়েছে। এতে করোনা আক্রান্ত রোগী দ্রুত ও সহজেই চিকিৎসা সেবা পাবে। করোনা ওয়ার্ড ছাড়াও অপারেশন থিয়েটার (ওটি), সার্জারি ওয়ার্ড, শিশু ওয়ার্ড এবং জরুরি বিভাগে সরাসরি পোর্টের মাধ্যমে অক্সিজেন সরবরাহ করা হবে।

চিকিৎসা নিতে আসা রোগী আকতার হোসেন জানান, ‘আগে সিলিন্ডার নিয়ে টানাটানি করতে হতো। অনেক সময় সিলিন্ডার পাওয়া না গেলে অক্সিজেন পাওয়া যেত না। এখন বেডের পাশেই অক্সিজেন র্পোট। সহজেই অক্সিজেন পাচ্ছি।’

করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় শতভাগ গুণগত মান রক্ষা করে অক্সিজেন প্ল্যান্ট স্থাপন করা হয়েছে বলে জানান সিভিল সার্জন নূপুর কান্তি দাশ। তিনি বলেন, ‘করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় প্রচুর অক্সিজেন প্রয়োজন হয়। করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় করোনা ওয়ার্ডে পোর্টের মাধ্যমে অক্সিজেন সরবরাহ করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে একই সঙ্গে ১৫৬ জনকে অক্সিজেন সরবরাহ করা যাবে। প্ল্যান্ট চালু হওয়ায় জেলার মানুষ এই সুবিধার আওতায় আসবে।’

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখে পাঠাতে পারেন আমাদের। এছাড়া যেকোনো সংবাদ বা অভিযোগ লিখে পাঠান এই ইমেইলেঃ [email protected]