• মঙ্গলবার   ১৯ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ৬ ১৪২৭

  • || ০৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

দৈনিক খাগড়াছড়ি
৮৪

২৮ ডিসেম্বর থেকে পাহাড়ে ৩ দিনের মাউন্টেইন বাইক প্রতিযোগিতা

দৈনিক খাগড়াছড়ি

প্রকাশিত: ২৪ ডিসেম্বর ২০২০  

ছবি- সংগৃহীত।

ছবি- সংগৃহীত।

 

আগামী ২৮ ডিসেম্বর থেকে তিন পার্বত্য জেলায় শুরু হচ্ছে তিন দিনব্যাপী মাউন্টেইন বাইক প্রতিযোগিতা-২০২০। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ‘বঙ্গবন্ধু ট্যুর ডি সিএইচটি এমটিবি চ্যালেঞ্জ ২০২০’ নামে এই প্রতিযোগিতা পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সহযোগিতায় রয়েছে বাংলাদেশ অ্যাডভেঞ্চার ফাউন্ডেশনসহ তিন পার্বত্য জেলার সংশ্লিষ্ট সরকারি দপ্তরগুলো। ৩০০ কিলোমিটার পাহাড়ি পথ পাড়ি দেওয়ার এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে তিন পার্বত্য জেলা থেকে ৪৫ জন এবং দেশের অন্যান্য জেলা থেকে ৫৫ জনসহ সর্বমোট ১০০ জন ক্রীড়াপ্রেমী সাইক্লিস্টস অংশগ্রহণ করবেন।

বুধবার বিকেল চারটায় পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের রাঙামাটিস্থ প্রধান কার্যালয়ের কর্ণফুলী মিলনায়তনে এক প্রেস কনফারেন্সে এ তথ্য জানানো হয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম নিজামীর সভাপতিত্বে এতে উপস্থিত ছিলেন- বোর্ডের সদস্য (পরিকল্পনা ও অর্থ) ড. প্রকাশ কান্তি চৌধুরী, সদস্য (প্রশাসন) আশীষ কুমার বড়ুয়া, সদস্য (পরিকল্পনা) হারুন অর রশিদ, রাঙামাটি প্রেসক্লাব সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন রুবেল, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার আল হক, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ অ্যাডভেঞ্চার ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধিসহ জেলায় বিভিন্ন প্রিন্ট, অনলাইন ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকরা।

এসময় পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড সদস্য (পরিকল্পনা ও অর্থ) ড. প্রকাশ কান্তি চৌধুরী জানান, রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার ‘সাজেক ভ্যালি’ থেকে তিনদিনের মাউন্টেইন বাইক প্রতিযোগিতা কর্মসূচির প্রথম দিন সকাল আটটায় ‘সাজেক ভ্যালি’ থেকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাইক্লিস্টরা প্রধম ধাপে ‘সাজেক ভ্যালি’ হতে রাঙামাটি চিং হ্লা মং চৌধুরী মারী স্টেডিয়াম পর্যন্ত ১৩০ কিলোমিটার পাহাড়ি পথ পাড়ি দিবেন। দ্বিতীয় দিন সকাল আটটায় রাঙামাটি চিং হ্লা মং চৌধুরী মারী স্টেডিয়াম হতে বান্দরবান স্টেডিয়াম পর্যন্ত তারা ৯০ কিলোমিটার পর্যন্ত পাহাড়ি পথ পাড়ি দিবেন। শেষ দিন বান্দরবান স্টেডিয়াম থেকে থানচির সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ পর্যন্ত ৮০ কিলোমিটার পাহাড়ি পথ পাড়ি দিবেন।

তিনি জানান, ১০০ সাইক্লিস্টস তিনদিনে ৩০০ কিলোমিটার পাহাড়ি পথ পাড়ি দেওয়ার পর শেষদিন সমাপনী অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের পুরষ্কৃত করা হবে। এর মধ্যে প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়নকে ৩ লাখ টাকা, প্রথম রানারআপকে ২ লাখ টাকা, দ্বিতীয় রানারআপকে ১ লাখ টাকা, বিশেষ পুরস্কার হিসেবে দেড় লাখ টাকাসহ মোট ৭ লাখ টাকার পুরষ্কার বিতরণ করা হবে। এছাড়া সফল প্রতিযোগিদের সকলকে সনদপত্র, মেডেল, ক্রেস্ট প্রদান করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়েছে, এ প্রতিযোগিতার উদ্দেশ্যসমূহ হলো- জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে পাহাড়ে নতুন মাত্রা সংযোজন। পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে অ্যাডভেঞ্চার ক্রীড়া পর্যটনকে অগ্রসর করা। স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে মাউন্টেইন বাইকের সঙ্গে পরিচিতকরা। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি করা। নতুন প্রজন্মকে শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য বিকাশে সক্ষমতা বৃদ্ধি করা। নিরাপদ ও টেকসই বাহন হিসেবে মাউন্টেন বাইককে পরিচিতকরা। পরিবেশ বান্ধব ও সাশ্রয়ী বাহন হিসেবে মাউন্টেইন বাইকের প্রচলন ও মাদকমুক্ত সমাজ বির্নিমাণ। কর্মসূচির বরাদ্দ ধরা হয়েছে প্রায় ৫০ লাখ টাকা।

এছাড়া ২৮ ডিসেম্বর সাজেকের রুইলুই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সফিকুল আহম্মদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন তথ্য মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি। সমাপনী দিনে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব জনাব সফিকুল আহম্মদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি থাকবেন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।